শিরোনাম
জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান টাকা দিয়ে এক বছরেও ঘর মেলেনি ভূমিহীন ফাতেমার মাগুরায় আজ নতুন ১০জন করোনা রোগী শনাক্ত,জেলাতে মোট আক্রান্ত ১১৫৬ বেনাপোল সিমান্তে ইয়াবাসহ চোরাকারবারি আটক কাপ্তাই হ্রদের পানিতে ফুল ভাসিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়েছে রাঙামাটির পাহাড়ি জনগোষ্ঠী সর্বাত্মক লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি বাঘা থানার ওসির ব্রেইন টিউমারের অস্ত্র পাচার সম্পূর্ণ আসতে পারে সাধারণ ছুটি! কওমি মাদ্রাসা বন্ধ না করা আহ্বান- হেফাজত ময়মনসিংহে প্রাণি সম্পদ দপ্তরের ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্র উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪০ অপরাহ্ন

ঝড়-বৃষ্টি হলেই অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিতে হয় হাসিনা বেগমকে

এসএম বাচ্চু,তালা(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি: / ১৫২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ২২ আগস্ট, ২০২০

ঝড়-বৃষ্টি হলেই অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিতে হয় হাসিনা বেগমকে। সংসার জীবনে কোন ভাবেই দিন পার করছেন হাসিনা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদনও করেছেন হাসিনা।
সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলায় খলিলনগর ইউনিয়নের বাসিন্দা হাসিনা বেগম অভাব অনাটন, অনাহারে,অর্ধহারে জীবন পার করছেন। বর্তমানে ভাঙ্গা টালির ছাউনির ঘরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তিনি। কিন্তু একটু ঝড় বা বৃষ্টি হলেই অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিতে হয় তাকে।
হাসিনা বেগম (৬০) এর স্বামী শেখ আব্দুল মান্নান ( মান্নান মুহুরী) হৃদরোগ জনীত কারনে ২০০৬ সালে মৃত্যুবরণ করেন। তিন পুত্র এক কন্যা সন্তান নিয়ে অন্যের জমিতে কাজ করে সংসার পরিচালনা করতেন হাসিনা।
আর্থিক সমস্যার কারনে তিন পুত্র পড়াশুনা বাদ দিয়ে অন্যর জমিতে কাজ করেন। বর্তমানে ৩ পুত্র বিবাহ করে সংসার আলাদা করে নিয়েছে। মেজ পুত্র সিদ্দীক শেখ কাজের খাতিরে বাহিরে থাকায় ভাঙ্গা টালির ঘরে থাকেন হাসিনা। কিন্তু ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের কারনে সেটাও ভেঙ্গে গিয়েছে।
হাসিনা বেগম জানান, বসতভিটার জমি না থাকায় পুরাতন কবর স্থানে উপড় ঘর তৈরী করে থাকতাম।ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ঘরটি ভেঙ্গে গিয়েছে। এখন সামান্য ঝড় বৃষ্টি হলে অন্যর বাড়িতে আশ্রয় নিতে হয় আমাকে|অন্যর জমিতে কাজ করে সংসার চালায়। যেখানে দুবেলা দু’মুঠো ভাত ঠিকভাবে খেতে পারিনা কিভাবে ঘর তৈরি করবো। আবার করোনা (কোভিড-১৯)ভাইরাসের কারনে কোন কাজ হয়না তেমন। মনে হয় এই বুঝি ঘরের চালটি আমার উপর পড়লো। এদিকে মেজ পুত্র বাড়িতে আসায় আমার থাকার জায়গা নেই। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি আবেদন করেছি। তবে এখনো কোন সুরহা হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট