শিরোনাম
চিরিরবন্দরে ন্যায্যমুল্যে দুধ ও ডিম বিক্রির উদ্বোধন সাতক্ষীরায় বন্ধুকে জবাই করে হত্যা; গ্রেপ্তারকৃত সোহাগের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান টাকা দিয়ে এক বছরেও ঘর মেলেনি ভূমিহীন ফাতেমার মাগুরায় আজ নতুন ১০জন করোনা রোগী শনাক্ত,জেলাতে মোট আক্রান্ত ১১৫৬ বেনাপোল সিমান্তে ইয়াবাসহ চোরাকারবারি আটক কাপ্তাই হ্রদের পানিতে ফুল ভাসিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়েছে রাঙামাটির পাহাড়ি জনগোষ্ঠী সর্বাত্মক লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি বাঘা থানার ওসির ব্রেইন টিউমারের অস্ত্র পাচার সম্পূর্ণ আসতে পারে সাধারণ ছুটি!
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৬:০৭ অপরাহ্ন

দাউদকান্দি উপজেলার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নানা কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

অসিম সরকার, দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি / ৮৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৭ মার্চ, ২০২১

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার শিক্ষা অফিসারের মোঃ নূরুল ইসলামের নির্দেশ, স্বাস্থ্য বিধি মেনে দাউদকান্দি উপজেলার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নানা কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত হয়।

দাউদকান্দি উপজেলার সহকারী শিক্ষক অফিসারের সার্বিক সহযোগিতায়, দাউদকান্দি উপজেলার বরকোটা ক্লাস্টারে খানেবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উক্ত আলোচনা সভা ও শিশু সমাবেশে শিশুদের জন্য বিভিন্ন ইভেন্টে চিত্রাংকন, কবিতা আবৃত্তি ও কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন, বিটেশ্বর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ এর সাবেক সভাপতি হুমায়ন কবির ভূঁইয়া, প্রধান অতিথি বক্তব্যে, নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস জানার উপর গুরুত্ব দেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, খানেবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, সভাপতির বক্তব্যে , শিক্ষার্থীদের দায়িত্ব সম্পর্কে অবহিত করে বলেন, ‘১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে যারা প্রাণ দিয়েছিলেন তারা অধিকাংশই ছিলেন বয়সে তরুণ এবং শিক্ষার্থী। তাই বর্তমান শিক্ষার্থীদেরও দায়িত্ব অনেক বেশি। তাদের প্রতিনিয়ত সজাগ থাকতে হবে। কে কখন উল্টো পথে চলে যাচ্ছে, কে কখন বিপথে চলে যাচ্ছে, কে কখন নিজেকে, পরিবারকে, জাতিকে, সম্প্রদায়কে ধ্বংসের পথে নিয়ে যাচ্ছে সে বিষয়ে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। একাত্তরের যুদ্ধের চেয়ে এখনাকার যুদ্ধ অনেক বেশি কঠিন। একাত্তরের শত্রুকে চেনা যেত। কারণ তাদের চেহারা, ভাষা আলাদা ছিল। কিন্তু এখন একই ভাষা, একই রং, একই বৈশিষ্ট্য ধারণ করে শত্রু আমাদের মধ্যে মিশে গেছে। সুতরাং শিক্ষার্থীদের এখন গা ভাসিয়ে দেয়ার সময় নয়। রক্তে দোলা দেবার সময়। অপশক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করবার সময়।’

এরপর বিভিন্ন ইভেন্টের বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেন । পুরস্কার হিসেবে শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বই ও শিক্ষা উপকরণ দেয়া হয়। সবশেষে শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিনের কার্যক্রমের সমাপ্তি ঘটে।
এছাড়া অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলো, বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা, ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট