শিরোনাম
ঠাকুরগাঁওয়ে শালবাগান থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় অজ্ঞাত এক বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার কটলীপাড়া-বসন্তপুর রাস্তা পাকাকরণের দাবিতে মানববন্ধন জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তালায় ওলের লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম প্লাবিত প্রতাপনগরে কবর না খুঁড়ে ইট বিছিয়ে দাফন! সাতক্ষীরায় লকডাউনে অনেক কষ্টে দিন পার করছেন ব্যবসায়ীসহ নানান পেশার মানুষ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে গৃহবধুর অস্বাভাবিক মৃত্যু রাঙামাটিতে অনুর্ধ্ব ১৭ বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের সেমিফাইনালে বরকল উপজেলা বালিকা টিম মাগুরায় আজ ১০ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত, জেলাতে মোট আক্রান্ত ১৩৭৬ নানিয়ারচরে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির প্রশিক্ষন কর্মশালা অনুষ্ঠিত রাঙামাটির বাংগালহালিয়ার শফিপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় শিক্ষার্থী নিহত; আহত ২
শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ১১:০৬ অপরাহ্ন

নেত্রকোণায় রোড সেফটির দাবীতে জেলা প্রশাসকের কাছে এআরএফবির স্মারকলিপি

মুহা. জহিরুল ইসলাম অসীম, নেত্রকোণা / ৫২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১

নেত্রকোণা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের টার্নিং পয়েন্ট এলাকা চিহ্নিতকরণ, জেলা শহরের প্রবেশধার সাকুয়াবাজারের সবচেয়ে বড় টার্নিং পয়েন্টিতে রোড সেফটি পূণঃর্বহালের দাবীতে নেত্রকোণা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশ করেছে নেত্রকোণা সামাজিক উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান আব্দুর রহমান ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ (এআরএফবি)।

সোমবার (১১ মে) জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি তুলে দেন এআরএফবির চেয়ারম্যান জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক দিলওয়ার খান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক, এআরএফবির পরিচালক মুহা. জহিরুল ইসলাম অসীম, সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আতাউর রহমান হিল্লোলসহ অনেকে।

স্মারক লিপিতে বলা হয়, ২০১২ সালে ধারবাহিকতায় নেত্রকোণা সড়ক ও জনপথ বিভাগের সহযোগিতায় টার্নিং পয়েন্ট নির্ধারণ সড়ক ও জনপথ এবং স্থানীয় সংগঠন এআরএফবির যৌথ সমন্বয়ে সতর্কীকরণ বিলবোর্ড ও স্পীড ব্রেকার স্থাপন করে দূর্ঘটনার হার আশানুরূপ কমে গিয়েছিল। বর্তমানে উক্ত মহাসড়কের নির্মাণ কাজ চলাকালীন সময় টার্নিং এলাকায় উচ্ছেদকৃত জায়গাগুলোর সড়ক সংলগ্ন স্থাপনা তৈয়ার এবং সাকুয়া বাজার টার্নিং এ রাস্তার উপর বিকেলে হাট-বাজার বসায় দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়িয়ে দিয়েছে। যে কোনো সময় বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এতে আরও বলা হয়, উক্ত টার্নিং পয়েন্টের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও সৌন্দর্যবর্ধক বৃক্ষরোপন এবং দুর্ঘটনা রোধে সড়ক ও জনপথ বিভাগের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এআরএফবি জোর সুপারিশ জানাচ্ছে। দৃশ্যমান প্রচারাভিযান প্রতিষ্ঠায় দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব হবে বলেই এআরএফবি বিশ্বাস করে। উল্লেখ্য যে, জেলা শহরের প্রবেশ পথ চল্লিশা থেকে সাকুয়া বিজিবি ক্যাম্প পর্যন্ত এযায়গায় রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, বিদ্যালয়, কলেজ, বিসিক শিল্পনগরী, পল্লীবিদ্যুৎ, পিডিবি, বাজার, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তসহ সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহ।

এসময় জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান বলেন, আমি উক্ত টার্নিংটি নিজে গিয়ে পরিদর্শন করে এসেছি, সত্যিই এটি জনগুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আমি দ্রুত এই সমস্যার সমাধানের জন্য কাজ করার নির্দেশ দিয়েছি। আপনাদের মতো সামাজিক সংগঠনগুলো এগিয়ে আসলে আমাদের রোড সেফটির জন্য কাজ করতে সুবিধা হয়।

উল্লেখ্য যে, এ ব্যাপারে গত ১৩ ই মে ২০১০ সালে স্থানীয় জনগণ উক্ত রাস্তাটিতে সংরক্ষিত এলাকা ও রোড সেফটির জন্য তৎকালীন জেলা প্রশাসক বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছিল। ২০০৮ সাল থেকে অদ্যাবধি পর্যন্ত বৃহৎ দূর্ঘটনার শিকার হয়ে পুলিশসহ ২৭ জনের প্রাণহানির মতো ঘটনাও ঘটেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট