বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সুজিত রায় নন্দী’র শুভেচ্ছা।

0
73

তাজুল ইসলাম তারেক সিঙ্গাপুর প্রতিনিধিঃ

সংকট ও সংগ্রামে, উন্নয়ন এবং অর্জনে গৌরবদীপ্ত পথচলায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আছে মানুষের পাশে। ২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী’র সাফল্য কামনায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দেশ ও দেশের বাহিরের সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী। তিনি বলেন বর্তমান ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল। “বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ” বাংলাদেশ সহ দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে একটি ঐতিহ্যবাহী প্রাচীনতম সংগঠন এই ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দলটির জন্ম হয় ২৩ জুন ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দে পুরান ঢাকার রোজ গার্ডেনে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে। প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক। পরবর্তী কালে এর নাম ছিল “নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগ” ১৯৫২ সালে বঙ্গবন্ধুকে এই দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নিযুক্ত করা হয়, পরের বছর থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত টানা ১৩ বছর সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন শেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-কে এই বছরই আওয়ামীলীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ ও ১৯৫৫ সালে অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক আদর্শের অধিকতর প্রতিফলন ঘটানোর জন্য “মুসলিম” শব্দটি বাদ দিয়ে এর নাম করণ করা হয় “আওয়ামী লীগ” ১৯৭০ সাল থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক নৌকা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একটি অনুভূতির নাম। বাংলাদেশের যত বড় বড় অর্জন, ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান। ছয় দফা আন্দোলন। ১৯৭১ সালে আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দীর্ঘ ৯ মাস রক্তঝরা মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ জাতীয় সংঘের সদস্যপদ লাভ করে। পরবর্তীতে জাতির জনকের যোগ্য কন্যা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্বল্প আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত করা হয়। বাংলাদেশের যে পাঁচটি মৌলিক চাহিদা আছে তার সবগুলোতেই সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ। জিডিপিতে লক্ষ্যমাত্রায় প্রবৃদ্ধির হার বৃদ্ধি। বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ও মানউন্নয়ন বৃদ্ধিকরা, বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের সবকিছুই আওয়ামী লীগের হাত ধরেই অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।

সুজিত রায় নন্দী আরো বলেন বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস এর প্রাদুর্ভাব এর কারণে এবছর দলটির ৭১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী জাঁকজমক পূর্ণভাবে পালন না করা গেলেও আমরা সীমিত আকারে, সোশ্যাল ডিসটেন্স বজায় রেখে, ধানমন্ডি ৩২ এ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্প অর্পণ, ও বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে দোয়া ও আশীর্বাদ করা হয়েছে। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সকল নেতা কর্মীবৃন্দকে নিয়ে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে, আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা থেকে শুরু করে এ যাবতকাল পর্যন্ত যত নেতাকর্মী মৃত্যুবরণ করেছেন, তাদের সকলের আত্মার শান্তি কামনায় আলোচনা ও আশীর্বাদ করা হয়েছে। এবং জাতির জনকের যোগ্য উত্তরসূরী জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য বিশেষভাবে আশীর্বাদ করেছি। সৃষ্টিকর্তা যেন আমাদের প্রিয় নেত্রী কে দীর্ঘ জীবন দান করেন এবং প্রিয় নেত্রীর হাত ধরেই যেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আরো বেশি শক্তিশালী রাজনৈতিক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে পারে। এবং মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে দেশ ও দেশের বাইরে যে সমস্ত নেতাকর্মী আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছন তাদের জন্য আশীব্বার্দ করা হয়েছে, এবং যারা অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসাধীন আছেন তাদের আশু রোগমুক্তি কামনা করা হয়েছে। মহান সৃষ্টিকর্তা সবাইকে ভাল রাখুক …

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here