শিরোনাম
চিরিরবন্দরে ন্যায্যমুল্যে দুধ ও ডিম বিক্রির উদ্বোধন সাতক্ষীরায় বন্ধুকে জবাই করে হত্যা; গ্রেপ্তারকৃত সোহাগের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান টাকা দিয়ে এক বছরেও ঘর মেলেনি ভূমিহীন ফাতেমার মাগুরায় আজ নতুন ১০জন করোনা রোগী শনাক্ত,জেলাতে মোট আক্রান্ত ১১৫৬ বেনাপোল সিমান্তে ইয়াবাসহ চোরাকারবারি আটক কাপ্তাই হ্রদের পানিতে ফুল ভাসিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়েছে রাঙামাটির পাহাড়ি জনগোষ্ঠী সর্বাত্মক লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি বাঘা থানার ওসির ব্রেইন টিউমারের অস্ত্র পাচার সম্পূর্ণ আসতে পারে সাধারণ ছুটি!
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৪৮ অপরাহ্ন

বেইজিংয়ে বাংলাদেশ দূতাবাস জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণকে যথাযথভাবে উদযাপন হয়েছে

মাসুদ রানা , চায়না প্রতিনিধি / ৫৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১

বেইজিংয়ে বাংলাদেশ দূতাবাস জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণকে যথাযথভাবে উদযাপন করেছে। এই বছরটি বাংলাদেশের জন্য একটি বিশেষ তাৎপর্য হিসাবে চিহ্নিত, কারণ বাংলাদেশ তার স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী এবং এই মহান নেতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করে। এই মহান নেতা এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালীর এই দিনে প্রদত্ত ঐতিহাসিক ভাষণটি ১৯৯১ সালে বাংলাদেশের যুদ্ধের মূল প্রেরণা ছিল, যার মাধ্যমে দেশটি একটি স্বাধীন জাতি হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছিল। দূতাবাসের কর্মী ও বাংলাদেশ সম্প্রদায়ের সদস্যদের উপস্থিতিতে রাষ্ট্রদূত মাহবুব-উজ-জামানের সভাপতিত্বে পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিবসটির কার্যক্রম শুরু হয়। এরপরে বঙ্গবন্ধু, তাঁর পরিবারের সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। এরপরে, রাষ্ট্রদূতসহ সকল কর্মকর্তা ও দূতাবাসের কর্মকর্তারা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলের পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এ উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বার্তা পাঠ করা হয়। দিবসটির স্মরণে একটি ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত হয়

দ্বিতীয় অধিবেশনটিতে প্রোগ্রামটি গুরুত্ববহ ছিল। অধ্যাপক ডা সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশের অন্যতম বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ, বর্তমান বঙ্গবন্ধু চেয়ার এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনাল এর অধ্যাপক, এবং বাংলা একাডেমির প্রাক্তন মহাপরিচালক,। “৭ই মার্চের ঐতিহাসিক তাৎপর্য” শীর্ষক মূল বক্তব্য প্রদান করেছেন। তিনি আরও মার্চ স্পিচ; বঙ্গবন্ধুর কূটনীতি এবং বৈদেশিক নীতি, ” নিয়ে আলোচনা করেন। বিদেশী কূটনীতিক, সারা বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশের কূটনীতিক, চীন মিডিয়া গ্রুপের (সিএমআই) প্রতিনিধি, বেইজিং ফরেন স্টাডিজ বিশ্ববিদ্যালয় এবং চীনের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা যারা বাংলা ভাষা শেখাচ্ছেন এবং শিখছেন, চীনা ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারী, ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সম্প্রদায়ের সদস্য এবং অন্যান্যরা ওয়েবিনারে অংশ নেন।

রাষ্ট্রদূতত মাহবুব-উজ-জামান তার প্রারম্ভিক বক্তব্যে তুলে ধরেন যে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু সমগ্র জাতিকে তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকদের অত্যাচার ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে উৎসহিত করার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, এই বক্তব্য রেখে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুর ও দিক নির্ধারণ করেছিলেন এই বলে যে, “এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম”। মূল বক্তব্যে অধ্যাপক ডা সৈয়দ আনোয়ার হুসেন বলেন ঐতিহাসিক ভাষণ তাঁর রাজনৈতিক তীক্ষ্ণতা, দক্ষতা এবং কূটনৈতিক দক্ষতার পরিচয় রেখেছিলেন। অধ্যাপক বলেছিলেন যে স্বাধীনতা সংগ্রামে ভূমিকা এবং পাশাপাশি তাঁর অতিশয় শক্তিশালী কারিশমার কারণে বঙ্গবন্ধু নীতি নির্ধারণ ও নতুন রাজ্যে গঠনে কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু এমন কিছু উল্লেখযোগ্য বক্তব্য দিয়েছেন যা বাংলাদেশের বিদেশ নীতিকে পূর্বনির্দেশিত করেছিল। অংশগ্রহণ এবং আলোচনার ক্ষেত্রে এটি ছিল খুবই ভালো মানের ওয়েবিনার। ছয়জন চীনা শ্রোতা, যার মধ্যে বেইজিং ফরেন স্টাডিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অধ্যাপক জেং কিওনগ, ইয়াং জিঝেইন (অনুপমা), ইউ গুয়াঙ্গিউ আনন্দি (ঢাকার চীন মিডিয়া গ্রুপের প্রধান সংবাদদাতা), জু কিয়ান হুই (আভা), ইউয়ান শ্যাং ইয়াও (হিয়া), ইউ মেং টিং (দিশা), একজন ব্যবসায়ী এবং দুই বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্য আলোচনা সভায় অংশ নিয়েছিলেন।

রাষ্ট্রদূতত মাহবুব-উজ-জামান অধিবেশনটি আবশ্যক করে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। ওয়েবিনারটি পরিচালনা করেন দূতাবাসের মিনিস্টার ডাঃ এম নজরুল ইসলাম।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট