মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩৬ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হলেন জনপ্রশাসন পদকপ্রাপ্ত কাপাসিয়ার বিদায়ী ইউএনও মোসাঃ ইসমত আরা
কাপাসিয়া (গাজীপুর) থেকে এফ এম কামাল হোসেন / ৬১ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১

জনপ্রশাসন পদকপ্রাপ্ত কাপাসিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোসাঃ ইসমত আরাকে ময়মনসিংহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৩ আগস্ট ) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেন।

জানা গেছে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাঠ প্রশাসন-২ শাখার উপসচিব কে. এম. আল-আমিন স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে মোসাঃ ইসমত আরাকে (১৭০০৫) অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে ময়মনসিংহে পদায়নের আদেশ জারি করা হয়েছে। (বিসিএস) ৩০তম ব্যাচের এই কর্মকর্তা ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে কাপাসিয়ায় যোগদান করেছিল।

উলে­খ্য: কাপাসিয়ায় যোগদানের পরই তাঁর নানামুখী ভূমিকা সাধারণ লোকজনের মধ্যে প্রশংসার স্বাক্ষর রাখে। বাল্যবিয়ে, নারী ও শিশু নির্যাতন রোধ, দারিদ্র বিমোচন, সরকারের সাফল্য নিয়ে উন্নয়ন মেলা, ভিক্ষুক পুনর্বাসন, ভেজাল প্রতিরোধ ও মাদক নির্মূলে সফলতা রয়েছে ইউএনও মোসাঃ ইসমত আরার। কাপাসিয়ায় দায়িত্ব পালনকালে জনসেবা প্রদানে উলে­খযোগ্য ও প্রশংসনীয় অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ জাতীয় পর্যায়ে সাধারণ (দলগত) ক্যাটাগরিতে গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলামের সঙ্গে দলগতভাবে ‘জনপ্রশাসন পদক-২০২০’ পেয়েছেন কাপাসিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোসাঃ ইসমত আরা।

গত ২৭ জুলাই (মঙ্গলবার) সকালে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনের সভাপতিত্বে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এই পদক বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যোগ দেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে পদক তুলে দেন মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

জানা গেছে, মাতৃমৃত্যু শূন্যের কোটায় এনে সারাদেশে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে কাপাসিয়া উপজেলা। গত তিন বছরে মাতৃমৃত্যু শূন্যে নেমে এসেছে কাপাসিয়ায়। মাতৃমৃত্যু কমাতে কাপাসিয়া মডেল বাস্তবায়নে গর্ভবতী মায়েদের ঝুঁকি, বয়সসহ ২৭ ধরনের তথ্য নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে তথ্যভান্ডার (ডেটাবেইজ সফটওয়্যার), যা ‘গর্ভবতীর আয়না’ নামে পরিচিত। এর পাশাপাশি আছে ‘গর্ভবতীর গয়না’ নামের একটি স্বাস্থ্য নির্দেশিকা। ‘গর্ভবতীর আয়না’ ও ‘গর্ভবতীর গয়না’র সমন্বয়ে চলছে মাতৃমৃত্যুমুক্ত এই কার্যক্রম। দরিদ্র গর্ভবতীর চিকিৎসা সহায়তার জন্য ‘মানবিক সহায়তা তহবিল’ নামে একটি তহবিল গঠন করা হয়েছে। বিনামূল্যে রক্তের গ্রæপ পরীক্ষা, প্রয়োজনীয় ওষুধসহ স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে প্রতি ছয় মাস অন্তর ইউনিয়নভিত্তিক ‘গর্ভবতী মা সমাবেশ’ অয়োজন করা হয়।

মামৃমৃত্যু কমাতে কাপাসিয়া মডেলকে আদর্শ ধরে ১০০টি উপজেলায় সেটা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। বিশ্বমঞ্চেও গুরুত্ব পাচ্ছে এই মডেল। জনসংখ্যা ও প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ে সর্বোত্তম অনুশীলন (বেস্ট প্র্যাকটিস) হিসেবে এই মডেল জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) মাধ্যমে বিশ্বের ২৭টি দেশে প্রদর্শনের জন্য নির্বাচিত হয়েছে। মোসাঃ ইসমত আরা ফরিদপুর জেলার বাসিন্দা।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ