বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫৩ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
ময়মনসিংহে পেশাগত দায়িত্ব পালনে অনন্য সাফল্যে প্রশংসিত জেলা গোয়েন্দা ওসি কামাল
আরিফ রববানী, ময়মনসিংহ / ১০৬ Time View
Update : বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১
সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ওসি শাহ কামাল আকন্দের  ভূমিকা পালনের বিষয়টি জেলার সর্বমহলে বেশ প্রশংসনিয়, সঠিক পুলিশিং দায়িত্ব পালনের কারণে এই জেলার মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি শাহ কামাল আকন্দ, তিনি অসাধ্যকে সাধন করে বেশ সুনাম অর্জন করেছে এই ময়মনসিংহ  জেলা জুড়ে।
জেলা গোয়েন্দা ওসি শাহ কামাল এই অপরাধ  কবলিত এলাকায় হিসেবে পরিচিত জেলা ময়মনসিংহ  দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই দল বল নির্বিশেষে তার সঠিক পুলিশিং দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে এই জেলায় ব্যাপক আইন শৃংখলার উন্নয়ন ঘটিয়েছেন। এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে বিগত তিন বছরে গড়ে ৯০ শতাংশ কমেছে অপরাধের সংখ্যা এবং অপরাধীকে আইনের আওতায় আনতে সক্ষমতা বৃদ্ধিও পেয়েছে অনেক। অপরাধ বিশ্লেষণকারীদের মতে- পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কঠোর নজরদারি ও কার্যকর ভূমিকা পালনের জন্যই এমনটা সম্ভব হয়েছে বলে মনে করেন।
ময়মনসিংহ  জেলা গোয়েন্দা ওসি শাহ কামাল আকন্দের বিশেষ এলিট ফোর্স ডিবির একাধিক সফল অপারেশনের মাধ্যমে দুর্ধর্ষ অপরাধ এবং অপরাধীদের আটকের জন্য ব্যাপক সুনাম রয়েছে তাদের।
ডিবি’র ওসি শাহ কামাল হোসেন আকন্দের ৩ বছরে সফলতার তথ্য মোতাবেক জানা গেছে- জেলা গোয়েন্দা শাখায় তিনি যোগদানের পর থেকে এপর্যন্ত  ৬১ কোটি টাকার মাদক,৪৪টি কুলেস হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছেন।
ময়মনসিংহের ব্রীজের কাছে লাশের তিন টুকরা,মাথা নেই। কুলেস এই নৃশংস মার্ডার নিয়ে জেলাবাসী যখন আতংকে,ডিবি তখন রহস্য উদঘাটনে তৎপর ছিলো, অবশেষে শুধু মাথা উদ্ধার নয়, ঘটনার সাথে জড়িত সবাইকে আটক ও জবানবন্ধী আদায় করে মানুষের মন থেকে ভীতি দূর করতে সম হন। এ ঘটনায় নগরবাসী তাকে বাহবা দিয়েছে।
প্রায় ৩ বছর আগে শাহ কামাল হোসেন আকন্দ ময়মনসিংহ ডিবিতে ওসি হিসেবে যোগ দেন। সে সময় এ জেলায় অপরাধ ছিল নিত্য দিনের ঘটনা। নগরবাসীর ঘুম ভাঙ্গলেই শোনা যেত খুন,ডাকাতি, মাদকের রমরমা ব্যবসা। নড়েচড়ে বসেন শাহ কামাল হোসেন আকন্দ। তিনি পুলিশ সুপারের পরামর্শে একটি শক্তিশালী ডিবি টিম গঠন করে শুরু করেন অপরাধীদের বিরুদ্ধে তৎপরতা।শুরু হয় এ্যাকশন। তিনি তার সময়ে ৪৪টি কুলেস হত্যার রহস্য উন্মোচনই শুধু করেননি। এসব ঘটনায় জড়িত ৭৬জনকে গ্রেফতারে সম হন। যাদের অধিকাংশ আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। চাঞ্চল্যকর কুলেস মামলার মধ্যে ব্রীজের মোড়ে ট্রলি ব্যাগে লাশের খন্ডিত টুকরা, গফরগায়ের পাগলায় অটোচালক শিহাব হত্যা,গৌরীপুরে যুবলীগ নেতা শাহীনুর হত্যা,গার্মেন্টস কর্মী হত্যা,রুবেল হত্যা।
গত তিন বছরে ৬০ কোটি ৮২ লাখ ৮৬হাজার ৪০০শত টাকার মাদক উদ্ধার করেন। এরমধ্যে আছে ১০কেজি ২৭২ গ্রাম হেরোইন, ১ল ১হাজার ১৭১পিস ইয়াবা ট্যাবলেট,২৭৭কেজি২৮৫ গ্রাম গাঁজা, ৮০৭ বোতল ফেন্সিডিল,১৫৮৭টি নেশার ইনজেকশন,১৯বোতল বিদেশী মদ, প্রায় ১৭০০লিটার দেশী মদ।যার সব মিলিয়ে মুল্য প্রায় ৬১ কোটি টাকা।
এ সময় চুরি যাওয়া ৩টি প্রাইভেট কার, ২৮টি মোটর সাইকেল,১টি পিকআপ, ৩৭টি অটোরিক্সা উদ্ধার করেন। যার মুল্য ৫৫ল ৪০হাজার টাকা, ১৮রাউন্ড গুলী সহ ৮টি বিদেশী পিস্তল,১১টি পাইপগান,৪৩টি কার্তুজ উদ্ধার করেন। ১০টি স্বর্নের চেইন উদ্ধার হয় এ সময়।
চাঞ্চল্যকর ডাকাতি মামলার মধ্যে মুক্তাগাছায় আরব এগ্রো ফার্ম,চায়না মোড়ে গরুর গাড়ী ডাকাতিও দোলাদিয়ায় ইউনিভার কোম্পানী সহ ১৯টি ডাকাতি মামলার রহস্য উন্মোচন এবং এসব ঘটনায় জড়িত ৫৭জনকে আটক করতে সম হন।
১৪টি সাইবার অপরাধ মামলার নিস্পত্তি হয় এই তিন বছরে। ৫৫৯জন জুয়ারী, ১১৩জন ছিনতাইকারী,১৪০জন চোর ও ভিকটিম উদ্ধার করেন ৪২জন। এই তিন বছরে ১৩০৮টি মামলায় ২৫০০ আসামী গ্রেফতার হয়।
শাহ কামাল হোসেন আকন্দ বেশ ক’বার জেলায় শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত হন। তিনি শুধু অপরাধ দমনেই পারদর্শী নন। মানব সেবায় করোনাকালীন সময়ে মানুষকে ঘরে থাকতে উদ্ধুদ্ধ করতে বিশেষ উদ্যেগ  নেন।এসময় অসহায়দের মাঝে খাদ্য বিতরন,মাক্স বিতরন,রান্না করা খাবার বিতরন করে সাধারন মানুষের কাছে একজন আস্থা ভাজন কর্মকর্তা হিসেবে পরিচিতি অর্জন করেন। রোজার সময় ৫ টাকায় ইফতার বিতরন করে অনেক অসহায় রোজাদের ইফতারী করতে উদ্যোগ নেন।
গত তিন বছরে এ জেলার মানুষ ডিবির উপর ব্যাপক আস্থা রেখেছেন। কোন মামলা ডিবিতে গেলেই তার রহস্য উদঘাটন এবং আসামী গ্রেফতার করে তিনি প্রমান রেখেছেন ইচ্ছা থাকলে উপায় হবেই। গত তিন বছরে তার সাফল্যর নেপথ্য কি জানতে চাইলে বলেন,পুলিশ সুপারের বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও নির্দেশে তিনি এসব অসম্ভবকে সম্ভব করতে পেরেছেন। এখন তার ডিবি থেকে বিদায়ের পালা। তিনি যেন একটি ভাল পোষ্টিং পেয়ে অপরাধ দমনে আরো অবদান রাখতে পারেন,সেটাই সবার প্রত্যাশা।
আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ