শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
রাজশাহীর বাঘায় মাদক সহ ইমো, বিকাশ হ্যাকার চক্রেরের ১ সদস্য গ্রেফতার
বাঘা (রাজশাহী) থেকে মোস্তাফিজুর রহমান / ২৫৩ Time View
Update : শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

রাজশাহীর বাঘা সীমান্ত এলাকায় ইমো এবং বিকাশ হ্যাকার চক্রের সংখ্যা পূর্বের যে কোন সময়ের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে। এক শ্রেনীর উঠতি বয়সী তরুন যুবকরা এ ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত হয়ে হ্যাক করা টাকায় করছে মাদক সেবন। এমন এক প্রেক্ষাপট থেকে বাঘা থানার এসআই আব্দুর রউফ এর নেতৃত্বে রাকিবুল ইসলামমিলন নামে এক কুখ্যাত হ্যাকারকে হ্যাকিং কাজে ব্যবহৃত ০১টি স্মার্ট ফোন, ০২টি বাটন ফোন, প্রতারাণার কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন কোম্পানির ১৫ টি মোবাইল সিম কার্ড, নগদ ৭৯ হাজার ৪০০শত টাকা, ০৫ গ্রাম হেরোইন ও ০২পিচ ইয়াবা সহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১৫ সেপ্টেম্বর বুধবার আনুমানিক রাত দেড় টার সময় উপজেলার মহদিপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার সঙ্গে থাকা কয়েকজন যুবক ঘটনা স্থল থেকে পালিয়ে রক্ষা পায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি র‌্যাব, থানা পুলিশ এবং ডিবি পুলিশের মাধ্যমে সীমান্তবর্তী বাঘা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ইতোমধ্যে প্রায় অর্ধ শতাধিক ইমো এবং বিকাশ হ্যাকার চক্রের সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে । অত:পর গ্রেফতার কৃতদের মুখ থেকে অনেকের নাম সহ বেশ কিছু তথ্য বেরিয়ে এসছে। সেই তথ্যের ভিত্তিতে বাঘা উপজেলার সকল বিকাশ এজেন্ট এবং (ডিএসও) যারা টাকা সরবরাহ করেন, এমন ব্যাক্তিদের থানায় ডেকে আলোচনা সভার মাধ্যমে প্রত্যেক এজেন্টদের সতর্ক করেছেন থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন। তার পরেও থেমে নেই এই চক্রের কার্যক্রম। অনেকেই বিকাশ এবং ইমো হ্যাকের টাকা দিয়ে মাদক সেবন করছে। যার প্রমান মিলেছে ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে।

বাঘা থানার উপ-পরিদর্শক(এস.আই)স্বপন হোসেন ও আব্দুর রউফ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার রাত আনুমানিক দেড়টার দিকে তাঁরা সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে উপজেলার মহদিপুর উত্তর আতার পাড়া এলাকায় গিয়ে দেখেন একটি ফাঁকা ঘরের মধ্যে ৪-৫ জন যুবক মাদক সেবন করছে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সবাই পালিয়ে গেলেও আটকে পড়েন হাবাসপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে কুখ্যাত হ্যাকার রাকিবুল ইসলাম মিলন (২৬)। অত:পর তার কাছ থেকে পুলিশ নগদ ৭৯ হাজার ৪০০শত টাকা, ০৫ গ্রাম হেরোইন ও ০২পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট এবং বিভিন্ন কোম্পানির ১৫ টি মোবাইল সিম কার্ড উদ্ধার করেন।এর মধ্যে দুইটা সিমে বিকাশ খোলা রয়েছে।

এ বিষয়ে বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বিকাশ থেকে টাকা বের করাটা হ্যাকিং নয়, এটা এক ধরনের ডিজিটাল ডাকাতি। আমরা এটি নির্মুল করতে চায়। আমি যতোদিন এ থানায় আছি মাদক এবং ইমো-বিকাশ হ্যাকারদের সাথে কোন আপোশ নেই। তিনি ধৃত আসামী নামে মামলা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন বলে জানান।

এদিকে রাজশাহী জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতে খায়ের আলম সম্প্রতি স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মীদের বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ পূর্বের যে কোন সময়ের চেয়ে এখন ভালো কাজ করছে। বিশেষ করে রাজশাহী জেলার সম্মানিত পুলিশ সুপার (এবিএম) মাসুদ হোসেন, বিপিএম (বার) স্যারের নির্দেশনায় সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করছে জেলার সকল থানা পুলিশ। আর এসব অপরাধ বিষয়ে যেসব অফিসার সফলতা দেখাচ্ছে, প্রতিমাসে তাদেরকে জেলা পুলিশের পক্ষ্ থেকে দেয়া হচ্ছে সম্মানী পুরুস্কার সহ সদনপত্র । ফলে গতিশীল হচ্ছে পুলিশী কার্যক্রম।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ