শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:৪৯ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
প্যান্ডোরা পেপারস নথি; দেশে দেশে তদন্ত শুরু
অনলাইন ডেস্ক / ৪৪ Time View
Update : শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১

বিশ্ব কাঁপানো প্যান্ডোরা পেপারস নথি ফাঁসের পরপরই অন্তত ১২টি দেশ অভিযুক্তদের অর্থপাচার ও কর ফাঁকিসহ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড তদন্তের ঘোষণা দিয়েছে। প্রশ্নবাণে জর্জরিত হচ্ছেন দেশগুলোর নেতারা।

গত রবিবার ওয়াশিংটনভিত্তিক সাংবাদিক ও গণমাধ্যম সংগঠনগুলোর নেটওয়ার্ক দি ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস (আইসিআইজে) ও তাদের মিডিয়া অংশীদাররা ‘প্যান্ডোরা পেপারস’ নামে এক কোটি ১৯ লাখ আর্থিক নথি ফাঁস করে। এতে ৯১ দেশ ও ভূখণ্ডের ৩৫ বর্তমান ও সাবেক জাতীয় নেতা, ৩৩০ জনের বেশি রাজনীতিবিদসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিদের গোপন লেনদেনের তথ্য উঠে আসে।

এ ঘটনায় এরই মধ্যে তদন্তের ঘোষণা দিয়েছেন পাকিস্তান, মেক্সিকো, স্পেন, ব্রাজিল, শ্রীলঙ্কা, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ব্রিটেন ও পানামার কর্মকর্তারা। এদিকে বিশ্বের দুর্নীতিবিরোধী ও মানবাধিকার সংগঠনগুলোও কর ফাঁকি ও অর্থপাচারের ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে।

প্যান্ডোরা পেপারসের নথিতে চেক রিপাবলিকের প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেই বাবিসের নাম উঠে এসেছে। অভিযোগ, তিনি ফ্রান্সে দুই কোটি ২০ লাখ ডলারের সম্পত্তি ক্রয় করেছেন। দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে গত সোমবার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীসহ অভিযুক্তদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড তদন্ত করা হবে। যদিও বাবিস দাবি করেছেন, তাঁর এই অর্থ কর পরিশোধিত।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নাম নথিতে না এলেও তাঁর ঘনিষ্ঠজনদের নাম এসেছে। এ বিষয়ে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করার কোনো পরিকল্পনা তাঁদের নেই।

নাম এসেছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মন্ত্রী ও দলীয় নেতাদেরও। দেশটির ৭০০ জনেরও বেশি লোকের নাম রয়েছে। এসব পাকিস্তানি নাগরিককে তদন্তের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। গোপন আর্থিক সম্পদের তথ্য ফাঁসের এই তদন্তের উদ্যোগকে সোমবার এক টুইট বার্তায় স্বাগত জানিয়ে ইমরান খান জানান, বিশ্বব্যাপী গোপন সম্পদের তথ্য ফাঁসে যেসব পাকিস্তানির নাম উঠে এসেছে, তাঁর সরকার অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করবে। কোনো অন্যায় হয়ে থাকলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

নথি ফাঁসের ঘটনায় গত সোমবার বহু সংস্থার মাধ্যমে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে ভারত সরকার। ভারতের কেন্দ্রীয় প্রত্যক্ষ কর বোর্ড (সিবিডিটি) জানিয়েছে তারা পুরো বিষয় খতিয়ে দেখছে। বহু সংস্থার এই তদন্তে ইনকাম ট্যাক্স ডিপার্টমেন্ট (আইটি বিভাগ), এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি), রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (আরবিআই) এবং ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (এফআইইউ) থেকে তদন্তকারীদের অন্তর্ভুক্ত করা হবে। সিবিডিটির চেয়ারম্যান এই তদন্তের নেতৃত্ব দেবেন এবং পর্যবেক্ষণ করবেন। ভারতের রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও সেলিব্রিটি মিলে ৩৮০ জনের নাম উঠে এসেছে নথিতে, যাঁদের মধ্যে ব্যবসায়ী অনিল আম্বানি, সাবেক ক্রিকেটার শচিন টেন্ডুলকারসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি রয়েছেন।

পানামা সরকার জানিয়েছে, প্যান্ডোরা পেপারসে নাম উঠে আসা অফশোর কম্পানিকে সুবিধা প্রদানকারীদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবে তারা। এর মধ্যে অন্যতম প্রতিষ্ঠান পানামাভিত্তিক ল ফার্ম অ্যালকোগাল। করস্বর্গগুলোতে শেল কম্পানি স্থাপনে সহযোগিতা করতে প্রতিষ্ঠানটি বড় ভূমিকা রাখে। এ ছাড়া দেশটির কর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নথিতে উঠে আসা পানামার সব ব্যক্তির কর তদন্ত করবে তারা।

ব্রাজিলের আইনসভার বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেসেন্দ্রো মলন ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি দেশটির কেন্দ্রীয় আইন প্রয়োগ সংস্থাকে বলবেন দেশটির অর্থমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক গভর্নরের অফশোর কার্যক্রম নিয়ে তদন্ত করতে। স্পেনের কর কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দিয়েছে, প্যান্ডোরা পেপারসে যাদের নাম এসেছে তাদের বিষয়ে তদন্ত করা হবে।

প্যান্ডোরা পেপারসের তথ্য ফাঁসকে গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে অস্ট্রেলিয়ার কর কার্যালয় জানিয়েছে, যাদের নাম এসেছে তাদের বিষয়ে তারা আলাদাভাবে তদন্ত করবে। বলা হয়, বার্তা পরিষ্কার—যারা দেশের করব্যবস্থার সঙ্গে প্রতারণার চেষ্টা করছে, তাদের গোপনীয়তা আর নিরাপদ নেই।

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার ও তাঁর স্ত্রী শেরি ব্লেয়ারসহ ইউরোপীয় অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির কর ফাঁকির তথ্য ফাঁস হয়েছে। এ বিষয়ে ইউরোপীয় নেতারাও প্রশ্নবাণে জর্জরিত হচ্ছেন। গত সোমবার ব্রিটেনের অর্থমন্ত্রী রিশি সানাক স্কাই নিউজকে জানিয়েছেন, কর কর্তৃপক্ষ ফাঁস হওয়া এসব ডাটা পর্যালোচনা করবে।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের অর্থপাচার-বিষয়ক বিশেষজ্ঞ মায়রা মার্টিনি অফশোর শিল্প বন্ধের আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘এ অনুসন্ধান আরেকবার স্পষ্টত প্রমাণ করল, এ ব্যবসা কিভাবে দুর্নীতি ও অর্থনৈতিক সন্ত্রাসকে উত্সাহিত করে।’ ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান আরসুলা ভন দের লিয়েন বলেন, ‘কর ফাঁকির বিরুদ্ধে লড়তে ইউরোপকে আরো অনেক কাজ করতে হবে।’

সূত্র : আইসিআইজে, এএফপি, ওয়াশিংটন পোস্ট।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category