মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
এজেন্ট দিয়ে কুমিল্লার ঘটনা ঘটানো হয়েছে : মির্জা ফখরুল
এবি ডেস্ক রিপোর্ট / ৭৭ Time View
Update : মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকারের ভেতরে এজেন্ট আছে। এজেন্ট দিয়েই কুমিল্লার ঘটনা ঘটানো হয়েছে। সেটির সূত্র ধরেই চাঁদপুর, নোয়াখালী, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা হয়েছে।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকেলে চট্টগ্রামের কাজীর দেউরীর টাইম স্কয়ার কমিউনিটি সেন্টারে মহানগর বিএনপির কর্মীসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

ফখরুল বলেন, এই চট্টগ্রামের লোক হাছান মাহমুদ সাহেব বারবার বলছেন, এর পেছনে নাকি বিএনপি আছে। আমি বলব, এসব ঘটনা ঘটাচ্ছেন আপনারা। এসব ঘটনা যদি না ঘটান তাহলে জনগণ তার অধিকার আদায়ের জন্য আন্দোলন করবে। জনগণের আন্দোলনকে ভিন্ন দিকে নেওয়ার জন্য আপনারা এসব করছেন।

তিনি বলেন, আমরা সবসময় এই বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করি। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান যারা আছেন তাদের পাশে আমরা ভাইয়ের মতো দাঁড়াই সবসময়। বাবরি মসজিদের ঘটনার সময় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। আমি তখন উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলাম। সেদিন কোথাও আমরা কোনও সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘটতে দিইনি।

তিনি আরও বলেন, দেশে বিরোধী রাজনীতির কোনো সুযোগ রাখা হচ্ছে না। আমাদের মিটিং করতে দেওয়া হয় না। মিটিং করতে গেলে পুলিশ মারে, মিথ্যা মামলা দিয়ে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। এবারও পুলিশ মিথ্যা মামলা দেওয়া শুরু করেছে। চৌমুহনীর ঘটনায় আমাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। পুলিশ-র‌্যাবের সামনে সন্ত্রাসীরা ভাংচুর করল, আর মামলা দেওয়া হলো আমাদের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে।

সরকারের কোনো গ্রহণযোগ্যতা নেই মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এরা মিথ্যা কথা বলে। একটাও সত্য কথা কোথাও বলে না। জনগণের সঙ্গে সবসময় এরা প্রতারণা করে এসেছে। গত নির্বাচন নিয়ে এখন কথা বলে না। নির্বাচন কমিশন নিয়ে কথা বলে না। বলে সার্চ কমিটি। ২০০৮ সালে অবৈধ মইনউদ্দিন ফখরুদ্দিনের সহায়তা নিয়ে ক্ষমতায় গেল। তারপর আদালতকে ব্যবহার করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করল।

দলের ভবিষ্যৎ ভাবনা নিয়ে ফখরুল বলেন, আমরা খুব দ্রুত কাজ করছি। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দিনরাত কাজ করছেন। নেতারা কাজ করছেন। দলকে দ্রুত সংগঠিত করে, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন করে একটি অভ্যুত্থানের মাধ্যমে এই দানবীয় সরকার, আওয়ামী লীগের সরকার, শেখ হাসিনার সরকারকে সরে যেতে বাধ্য করা হবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন দিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেনের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্করের পরিচালনায় কর্মীসভায় প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ