শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৬:১২ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা বাস্তবায়ন চান জিএম কাদের
এবি ডেস্ক রিপোর্ট / ৭১ Time View
Update : শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২

বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে প্রাদেশিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জাতীয় সমন্বয় কমিটির সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

জিএম কাদের বলেন, শোষণের জন্য তৈরি ব্রিটিশদের প্রশাসনিক কাঠামো ভেঙে গণমানুষের জন্য সেবাধর্মী নানা সংস্কার কর্মসূচি ঘোষণা করেছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। ব্রিটিশরা শাসন করতে প্রশাসক নিয়োগ করেছিল। শোষণের জন্য রাজা-বাদশারাও শাসক নিয়োগ করেছে। কিন্তু পল্লী বন্ধু চেয়েছিলেন, গণমানুষের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দিয়েই শাসনের বিপরীতে কল্যাণময় সেবা চালু করতে। তাই বর্তমান বাস্তবতায় পল্লী বন্ধুর স্বপ্নের প্রাদেশিক সরকার পদ্ধতি বাস্তবায়ন জরুরি হয়ে পড়েছে।

জিএম কাদের বলেন, নতুন নতুন প্রশাসনিক বিভাগ তৈরি হচ্ছে। তা উপনিবেশিক শাসন পদ্ধতিতেই প্রশাসক নিয়োগের মাধ্যমে কাজ করছে। কিন্তু প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু হলে, জনগণের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মাধ্যমেই পরিচালিত হবে সব কর্মকাণ্ড। প্রাদেশিক পর্যায়ে জনপ্রতিনিধিদের সরকার প্রতিষ্ঠিত হলে দুর্নীতি কমে যাবে। গণমানুষের কাছে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহি নিশ্চিত হবে।

গণমানুষের কল্যাণেই প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু করা জরুরি হয়ে পড়েছে দাবি করে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, প্রাদেশিক ব্যবস্থায় রাষ্ট্র ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ হবে, এতে কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর থেকে চাপ কমে যাবে।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায়, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, উপদেষ্টা মনিরুল ইসলাম মিলন, ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান।

প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা বাস্তবায়ন চান জিএম কাদের

বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে প্রাদেশিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জাতীয় সমন্বয় কমিটির সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

জিএম কাদের বলেন, শোষণের জন্য তৈরি ব্রিটিশদের প্রশাসনিক কাঠামো ভেঙে গণমানুষের জন্য সেবাধর্মী নানা সংস্কার কর্মসূচি ঘোষণা করেছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। ব্রিটিশরা শাসন করতে প্রশাসক নিয়োগ করেছিল। শোষণের জন্য রাজা-বাদশারাও শাসক নিয়োগ করেছে। কিন্তু পল্লী বন্ধু চেয়েছিলেন, গণমানুষের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দিয়েই শাসনের বিপরীতে কল্যাণময় সেবা চালু করতে। তাই বর্তমান বাস্তবতায় পল্লী বন্ধুর স্বপ্নের প্রাদেশিক সরকার পদ্ধতি বাস্তবায়ন জরুরি হয়ে পড়েছে।

জিএম কাদের বলেন, নতুন নতুন প্রশাসনিক বিভাগ তৈরি হচ্ছে। তা উপনিবেশিক শাসন পদ্ধতিতেই প্রশাসক নিয়োগের মাধ্যমে কাজ করছে। কিন্তু প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু হলে, জনগণের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মাধ্যমেই পরিচালিত হবে সব কর্মকাণ্ড। প্রাদেশিক পর্যায়ে জনপ্রতিনিধিদের সরকার প্রতিষ্ঠিত হলে দুর্নীতি কমে যাবে। গণমানুষের কাছে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহি নিশ্চিত হবে।

গণমানুষের কল্যাণেই প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু করা জরুরি হয়ে পড়েছে দাবি করে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, প্রাদেশিক ব্যবস্থায় রাষ্ট্র ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ হবে, এতে কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর থেকে চাপ কমে যাবে।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায়, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, উপদেষ্টা মনিরুল ইসলাম মিলন, ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category