সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৩:০৮ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
ত্রিপুরায় মুসলিমবিরোধী সহিংসতা, নিরাপত্তা জোরদার
আন্তর্জাতিক ডেস্ক / ১১২ Time View
Update : সোমবার, ১৬ মে ২০২২

মুসলিমদের সম্পত্তি ও মসজিদে হামলার ঘটনার পর ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ত্রিপুরায় উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে রাজ্যের মুসলিমদের আক্রান্ত স্থাপনা ও এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার এবং জনসমাবেশে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

গত কয়েকদিন ধরে ত্রিপুরায় পুলিশের সঙ্গে দেশটির বিভিন্ন হিন্দু গোষ্ঠীর সংঘর্ষের পর সেখানে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। সম্প্রতি প্রতিবেশি বাংলাদেশে হিন্দুদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনার জেরে ত্রিপুরায় বিক্ষোভ-প্রতিবাদের অনুমতি দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় সেখানকার হিন্দুরা প্রতিবাদ করছেন।

চলতি মাসের শুরুর দিকে বাংলাদেশে দুর্গা পূজার বিশেষ মণ্ডপে কোরআন অবমাননার গুজব ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এই ঘটনার প্রতিবাদে দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দুদের মন্দির, পূজা মণ্ডপ এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাঙচুর হয়। এতে অন্তত সাতজনের প্রাণহানিও ঘটে।

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ত্রিপুরার তিন দিকেই বাংলাদেশের সীমান্ত এবং প্রতিবেশি রাজ্য আসামের সঙ্গেও একটি করিডর রয়েছে। ২৫ বছরের কমিউনিস্ট শাসনের অবসানের পর ২০১৮ সাল থেকে ত্রিপুরার ক্ষমতায় আছে ভারতের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)।

গত চার দিনে উত্তর ত্রিপুরা জেলার বিভিন্ন স্থানে ১০টির বেশি ধর্মীয় সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে ত্রিপুরার সীমান্ত শহর পানিসাগরে একটি মসজিদ এবং মুসলিমদের বেশ কয়েকটি দোকানপাটে ভাঙচুরের ঘটনার পর থেকে সেখানে বড় ধরনের সমাবেশে বিধি-নিষেধ আরোপ করেছে কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সহিংসতার প্রতিবাদে ত্রিপুরায় হিন্দু গোষ্ঠীগুলোর বিক্ষোভ-সমাবেশ বিজেপির ঘনিষ্ঠ মিত্র ও দেশটির কট্টর হিন্দুত্ব জাতীয়তাবাদী গোষ্ঠী বিশ্ব হিন্দু পরিষদের (ভিএইচপি) বিক্ষোভ-সমাবেশ থেকে মুসলিমদের স্থাপনা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা হয়। পানিসাগরের জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা সৌভিক দেব বলেছেন, ওই সমাবেশে সাড়ে তিন হাজারের মতো মানুষ অংশ নিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, সমাবেশে অংশ নেওয়া বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কিছু কর্মী চামটিল্লার একটি মসজিদে ভাঙচুর করেছেন। পরবর্তীতে সেখানে আরও তিনটি বাড়ি ও তিনটি দোকান ভাঙচুর করা হয়। প্রথম ভাঙচুরের ঘটনা থেকে ৮০০ গজ দূরের রোয়া বাজার এলাকায় দুটি দোকানেও আগুন দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা।

পুলিশ বলছে, ভাঙচুরকৃত দোকান এবং বাড়িগুলো মুসলিমদের। তাদের একজনের অভিযোগের পর একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

দেশটির আরেক কট্টর হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠী বজরং দলের স্থানীয় নেতা নারায়ণ দাস অবশ্য দাবি করেছেন, মসজিদের সামনে কিছু তরুণ বিক্ষোভকারীদের গালাগালি এবং তরবারি প্রদর্শন করেছে। তবে দাসের এই অভিযোগ নিরপেক্ষভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

ত্রিপুরা পুলিশ এক টুইটে বলেছে, কিছু মানুষ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব এবং উসকানিমূলক বার্তা ছড়াচ্ছেন। শান্তি বজায় রাখতে এলাকার জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে পুলিশ।

গত সপ্তাহে ভারতের মুসলিমদের সংগঠন জমিয়ত- উলামা-ই-হিন্দ’র ত্রিপুরা শাখা উত্তেজিত একদল জনতা মসজিদ ও মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করে। ত্রিপুরা পুলিশ বলছে, তারা রাজ্যের দেড় শতাধিক মসজিদে নিরাপত্তা জোরদার করেছে।

ভারতের এই রাজ্যের মোট জনসংখ্যা ৪২ লাখ। এর মধ্যে মুসলিম জনগোষ্ঠী সংখ্যা প্রায় ৯ শতাংশ।

ত্রিপুরার লেখক বিকাশ চৌধুরী বলেন, ত্রিপুরার জনসংখ্যার অধিকাংশই বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দু উদ্বাস্তু, তারপরও প্রতিবেশী দেশে এর আগে ধর্মীয় বিশৃঙ্খলার পর এখানে মুসলমানদের বিরুদ্ধে কখনোই কোনও প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি।

রাজ্যের বিরোধী দলগুলো মুসলিমদের ওপর হামলার জন্য ক্ষমতাসীন বিজেপির ঘনিষ্ঠ ‘রাজনৈতিক স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীগুলোকে’ দায়ী করেছে।

ত্রিপুরায় বেশিরভাগ সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া এলাকায়
আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল তৃণমূল কংগ্রেসের এমপি সুস্মিতা দেব বিবিসিকে বলেছেন, ‘নভেম্বরে রাজ্যের পৌরসভা নির্বাচনের আগে ভোটারদের ‘মেরুকরণ’ করতে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সহিংসতাকে ব্যবহারের চেষ্টা করছে বিজেপি।’

এ ব্যাপারে জানতে ত্রিপুরার সংখ্যালঘুবিষয়ক মন্ত্রী রতনলাল নাথকে টেলিফোন করলেও কোনও সাড়া পায়নি বিবিসি। গণমাধ্যমে কথা বলার অনুমতি না থাকায় বিজেপির একজন নেতা নাম প্রকাশে অস্বীকৃতি জানিয়ে বিবিসিকে বলেন, বাংলাদেশে হিন্দুদের ওপর ভয়াবহ হামলার প্রতিক্রিয়ায় এখানে বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনা থেকে বিরোধীদের রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করা উচিত নয়।

পরিস্থিনি নিয়ন্ত্রণে যা করা দরকার রাজ্য সরকার তার সবই করেছে বলে দাবি করেছেন বিজেপির এই নেতা।

সূত্র: বিবিসি।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ