বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৭:৩১ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
কাপাসিয়ায় রায়েদ ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ চেয়ারম্যান প্রার্থীর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী মুনমুনের সংবাদ সম্মেলন
কাপাসিয়া ( গাজীপুর ) থেকে এফ এম কামাল হোসেন / ৭৭ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার ২নং রায়েদ ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রচারণার কাজে বাধা, হামলা ও হুমকির প্রতিবাদে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনা খাতুন গাজীপুর প্রেসক্লাবে শনিবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠকালে স্বতন্ত্রপ্রার্থী আমিনা খাতুন বলেন, আগামি ১১-১১-২০২১ তারিখে কাপাসিয়া উপজেলার ২নং রায়েদ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আমি ওই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চশমা প্রতীক নিয়ে অংশগ্রহণ করেছি। এ পদে আমি প্রার্থী হওয়ার পর থেকেই আমার প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগ প্রার্থী শফিকুল হাকিম মোল্লা হিরণ তার লোকজন আমাকে নির্বাচন থেকে সরে যেতে খুন-জখমের হুমকি দিয়ে আসছে। তার লোকজন আমার নির্বাচনী পোস্টার ছিড়ে ফেলছে এবং আমার প্রচারণার কাজে বাঁধা দিচ্ছে।

গত ২ নভেম্বর সন্ধ্যায় আমি আমার কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে স্থানীয় হাইলজোর স্কুল গেইটের সামনে দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় আমার হিরণ এবং তার ভাগিনা রাহাতের হুকুমে ও নির্দেশে শতাধিক সশস্ত্র সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক আমার নির্বাচনী প্রচারণার কাজে বাধা দেয় এবং অকথ্য ভাষায় গালিাগালাজ শুরু করে। আমি এর প্রতিবাদ করলে তাদের কয়েকজন আমার মাথার চুলের মুঠি ধরে টানাহেচড়া করে। এক পর্যায়ে রড দিয়ে আমার মাথায় হামলা করলে তা হাত দিয়ে ফিরিয়ে প্রাণে রক্ষা পাই। এসময় আমাকে রক্ষা করতে গিয়ে তাদের হামলায় আমার ছোট বোন শিক্ষানবীশ আইনজীবী উম্মে কুলসুম ইভা, আমার গাড়ির চালক আক্রাম হোসেন, বোনের গাড়ির চালক সজীবসহ ৭জনের মতো আহত হয়েছেন।

এসময় তারা আমার দুইজন কর্মীর দুইটি মোটর সাইকেলও ভাংচুর করে প্রায় দেড়লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করেছে এবং আমার ব্যাগ থেকে ১৫হাজার ৩০০টাকা ও হ্যান্ডমাইক ছিনিয়ে নিয়ে যায়। চলে যাওয়ার সময় আমাকে ও আমার লোকজনকে এ নির্বাচন থেকে সরে যেতে ও প্রচারণা বন্ধ করতে খুন-জখমসহ নানা হুমকি দেয় তারা। আহতদের মধ্যে চালক আক্রাম হোসেন ও চালক সজীব শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এসব ব্যাপারে থানা নির্বাচন অফিসার, নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার, কাপাসিয়া থানার ওসি, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিস্ট কর্মকর্তাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

সংবাদ সম্মেলনে তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন তার ছোট বোন ইভা ও আহত চালক আক্রাম হোসেন।

অভিযোগের বিষয়ে শফিকুল হাকিম মোল্লা হিরণ এ প্রতিনিধিকে জানান, তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ