শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:০৭ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
শহরের প্রাণসায়ের খালপাড়ে কাপড়ের দোকান নিয়ে বিরোধ: হকার্স মার্কেট নির্মাণের দাবী
সাতক্ষীরা থেকে সোহাগ হোসেন / ৮৯ Time View
Update : শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

কেউ দখল করে আবার কেউ দখল না করেই প্রাণ সায়েরকে ডাস্টবিন হিসেবে ব্যবহার করা শুরু করেছেন। তবে ডিসিআর গ্রহীতা ব্যবসায়ীরা খালপাড়ের পরিবেশ নষ্টের জন্য ডিসিআর না নিয়েই যারা কাপড়ের দোকান গড়ে তুলেছেন তাদেরকে দোষারোপ করছেন।

সাতক্ষীরা পৌরসভায় কোন হকার্স মার্কেট নেই। ফলে শহরের শহিদ কাজল সরণীস্থ পাকাপুল থেকে নিউমার্কেট পর্যন্ত সড়কের দুটি পয়েন্টে অস্থায়ী দোকান গড়ে উঠেছে। কমদামে শীতবস্ত্রসহ বিভিন্ন সামগ্রী বিশেষ করে পুরাতন কাপড়-চোপড় বিক্রি হয় এসব দোকানে। সাধারণ গরীব মানুষ তাদের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন সামগ্রী কেনেন এসব দোকান থেকে।

সম্প্রতি প্রাণ সায়ের খাল খননের পর সাবেক পৌর মেয়র এমএ জলিলের বাড়ির পূর্বপাশে খালের ধারে বেশকিছু নতুন দোকান গড়ে উঠেছে। অবৈধভাবে গড়ে উঠা এসব দোকানের কারণে বৈধ দোকানের মালিকদের ব্যবসায় প্রভাব পড়ছে। এ কারণে তারা বেশকিছু দিন ধরে খালপাড় দখল করে পরিবেশ নষ্ট করার অভিযোগ করছেন নতুন দখলদারদের।

তারা বলেন, শহরের সুলতানপুর বড়-বাজার থেকে থানা মসজিদ পর্যন্ত কাপড়ের ব্যবসা পরিচালিত হয়। কিন্তু সম্প্রতি কিছু অসাধু ব্যক্তি সাবেক পৌর মেয়র আব্দুল জলিল সাহেবের বাড়ির পূর্ব পাশে (ওয়ান ব্যাংকের সামনে) প্রাণ সায়ের খালপাড় দখল করে নি¤œমানের কাপড় বিক্রয় করে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে তাদের ধোকায় পড়ে অনেক ক্রেতা ঠকেছেন। এ নিয়ে প্রায়ই তাদের সাথে ক্রেতাদের ঝগড়া বিবাদ লেগে থাকে। সম্প্রতি একজন মহিলা ক্রেতাকে তারা মারপিটও করেছেন।

খালপাড় দখল করে তারা খুটিপুতে সেখানে অস্থায়ীভাবে দোকান দিয়ে প্রতিনিয়ত ময়লা আবর্জনা প্রাণ সায়ের খালে ফেলে পরিবেশ দূষিত করছে। তারা আরো বলেন, খালপাড়ের অবৈধ দোকানদারদের কাছ থেকে নি¤œ মানের কাপড় কিনে একদিকে যেমন প্রতারিত হচ্ছেন, অন্যদিকে ক্রেতারা আমাদের মার্কেট থেকে কাপড় কিনতে আগ্রহ হারাচ্ছেন। এর ফলে আমাদের ব্যবসায়ীক সুনাম নষ্ট হচ্ছে। এমন অভিযোগও করেন সাতক্ষীরা বস্ত্র ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সদস্যরা।

সাতক্ষীরা বস্ত্র ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সদস্যরা বলেন, ইতোপূর্বে আমরা সাতক্ষীরার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের অনুমতি নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে সদর এ্যাসিল্যান্ড বরাবর আবেদন করি। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও এঘটনায় কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় আমরা হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছি এবং এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনও করেছি। সাতক্ষীরা বস্ত্র ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে প্রাণ সায়ের খালপাড় দখলকারী ওই সকল অসাধু ব্যবসায়ীদের দ্রুত উচ্ছেদপূর্বক প্রাণ সায়ের খাল রক্ষা এবং বস্ত্র ব্যবসায়ীদের ক্ষতির হাত রক্ষা করতে জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

তবে দখলকারীদের বক্তব্য পৌরসভা হকার্স মার্কেট তৈরী করলে আমরা সেখানে যেতে পারি। তারা আরো বলেন, সামান্য কিছু এলাকায় ২৫-৩০ গজ এলাকায় আমাদের দোকান। এই স্থান যতটা না নোংড়া তার চেয়ে অনেক বেশি নোংরা অন্যান্য এলাকা। বৈধ ব্যবসায়ীরাও বর্জ্য ফেলেন প্রাণ সায়র খালে। তারা আরো বলেন, আমরা কমদামে জিনিষপত্র বিক্রি করছি বলে অনেক গরীব মানুষ তা কিনতে পারছে। তারা আরো বলেন, যেহেতু গরীব মানুষ আমাদের ক্রেতা সেকারণে আমাদের কারণে স্থায়ী দোকানের ব্যবসায়ীদের ক্ষতি হওয়ার কথা নয়।

জেলা নাগরিক কমিটির আহবায়ক মো. আনিসুর রহিম বলেন, স্থায়ী ব্যবসায়ীদের দাবীর বিষয়টি যেমন যৌক্তিক ঠিক একইভাবে হকারদের বিষয়টিও আমাদের ভাবতে হবে। এজন্য তিনি পৌরসভার পক্ষ থেকে দ্রুত হকার্স মার্কেট নির্মাণের দাবী জানান।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ