বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
ঋতুরাজ বসন্তের রক্ত আভায় শোভিত শিমুল ফুল
আসিফ আহম্মেদ সানি / ১৮৬ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২

সবুজ ঘাসের উপর যে ফুল রাখলে বাংলাদেশের পতাকা মনে হয় তার নাম শিমুল ফুল। শীতের পরেই বসন্তের আগমন বার্তা বয়ে আনে এই শিমুল ফুল। গ্রাম বাংলার মানুষ ক্যালেন্ডারের তারিখ গণনা করতে না পারলেও শিমুল গাছে ফুল এলেই বলতে পারে এখন ফাল্গুন মাস এসেছে। গাঢ় লাল রঙের পাপড়ি আর সবুজ রঙের বোঁটায় শোভিত এক অপরূপ ফুলের নাম শিমুল।

আর শিমুল গাছে দেখা মিলে টকটকে লাল ফুল গন্ধ না থাকলেও প্রকৃতিকে বিমোহিত করে রাঙিয়ে তোলে। পথচারিদের আকৃষ্ট করে শিমুল ফুল। বাংলাদেশের প্রায় সব অঞ্চলে দেখা যায়। বাংলার মাঠে ঘাটে রাস্তার পাশে অনাদর অবহেলায় বেড়ে উঠে শিমুল গাছ।

শীতের শেষে এই গাছের পাতা ঝরে যায় ফাল্গুন মাসে ফুলের কুড়ি আসে এবং চৈত্র মাসে লাল ফুল ফোটে এর পর গাছের পাতা গজানো শুরু হয়। ফুলের পাপড়ি ১০-১২ সে. মি. লম্বা হয়। শিমুল (Silk cotton tree) এর বৈজ্ঞানিক নাম Bombax ceiba পরিবার Bombaceae. বৃক্ষজাতীয় উদ্ভিদ। বাংলাদেশ, ভারত, চীচ সহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে জন্মে থাকে লম্বায় প্রায় ১৫-২০ মিটার হয়।

পাঁচটি প্রজাতীতে দেখা যায় তার মধ্যে রেশমি শিমুল, লাল শিমুল, কাপোক শিমুল, পাহাড়ী শিমুল, মোজাম্বিক শিমুল। এর মোচাকৃতি ফল হয় চৈত্র বৈশাখ মাসে ফল পাকে এবং ফল পেকে বীজ ও তুলা বেড় হয়ে আসে। লেপ তোষক, বালিশ ইত্যাদি তৈরীতে ব্যবহৃত হয়। মাঝারি আকৃতির গাছ থেকে প্রায় ১৫-১৮ কেজি তুলা হয়।

ভেষজ গুন

শিমুল গাছের মূল ভিজিয়ে খেলে যৌন দূর্বলতা দূর হয়। শুক্রানু সক্রিয় থাকে। পোড়া ঘায়ে : শিমুল তুলা নিয়ে তাতে শিমুল গাছের ছাল অথ্যাৎ মোচরস দিয়ে ভিজিয়ে পোড়া ঘায়ে দিন, ঘা সেরে যাবে। হোমিয়প্যাথিতে ইড়সনধী পবরনধ নামক ঔষধ আছে। এই মূল দিয়ে কবিরাজী, ইউনানী ঔষধ তৈরীতে ব্যবহার হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ