সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:২১ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
নবাবগঞ্জে বিদ্যালয়ের শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ সহকারী জজ আদালতে মোকদ্দমা দায়ের
নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে আর কে ওসমান আলী / ৬৫ Time View
Update : সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে শিমর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কৃষি রফিকুল ইসলাম (R546797)এর বিরুদ্ধে নিজে  প্রধান শিক্ষক সাজিয়ে দায়িত্ব পালন এবং তথ্য গোপন করে যোগদান এমপিওভুক্ত হয়ে বেতন ভাতা উত্তোলনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে নবাবগঞ্জ সহকারী জজ আদালত দিনাজপুরে বিদ্যালয়ের  কয়েকজন  অভিভাবক বাদী হয়ে অভিযোগ করেছেন  যার নং ৩৩/২২। 
গত ২৪ মার্চে  বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নবাবগঞ্জ,জেলা শিক্ষা অফিসার দিনাজপুর, উপপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর রংপুর বিভাগ,মহাপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকা, সচিব ,শিক্ষা মন্ত্রণালয়,জেলা প্রশাসন,দিনাজপুরকে বিবাদী করে মোকদ্দমা টি দায়ের করেন।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, ২নং বিবাদী প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের আপন শ্যালক হচ্ছেন ১নং বিবাদী কৃষি শিক্ষক রফিকুল ইসলাম।
ভাগ্যক্রমে তাদের দুই জনের নাম একই রফিকুল ইসলাম কিন্তু তাদের সহি স্বাক্ষর আলাদা আলাদা তা শিক্ষক হাজিরা খাতার দৃষ্টে প্রতীয়মান। কৃষি শিক্ষক রফিকুল ইসলাম নিজেকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে ঘোষণা দিয়ে সরাসরি প্রধান শিক্ষকের জায়গায় নিজের সহি/ স্বাক্ষর প্রদান করে সাধারণ শিক্ষক ,কর্মচারীগণের নৈমিত্তিক ছুটি মঞ্জুর, ছাত্র/ছাত্রীদের প্রশংসা পত্র, প্রত্যয়ন পত্র সহ যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন যা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহ পরিচালনা আইনের সুস্পষ্ট লংঘন।
বাদীগণ আরজিতে আরও জানান ২নং বিবাদী প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের মাধ্যমে ১নং বিবাদী রফিকুল ইসলাম কৃষি শিক্ষক হিসেবে ১৯৯৩ সালের অক্টোবর মাসে  শিমর উচ্চ বিদ্যালয়ে যোগদান করেন এবং ২০০০ সালের  জানুয়ারি মাসে এমপিওভুক্ত হয়ে অদ্য পর্যন্ত বেতন ভাতা উত্তোলন করছেন। ১ নং বিবাদী কৃষি শিক্ষক রফিকুল ইসলাম তার দেওয়া তথ্য বিবরণীতে এস এস সি/ ৮০ তৃতীয় বিভাগ, এইচ এস সি /৮৫ তৃতীয় বিভাগ এবং কৃষি ডিপ্লোমা ২০১২ সালে দেখান। স্নাতক পাস না করেও তিনি নিজেকে স্নাতক বলে শিক্ষক তথ্য বিবরণীতে দেখান ,যা বিদ্যালয়ে কোন তথ্যাদি নেই।
ঐরুপে বাদীগণ তার নিয়োগ যোগদান, বেতার ভাতা উত্তোলন এবং প্রধান শিক্ষক সাজিয়ে দায়িত্ব পালন কেন অবৈধ ঘোষণা হবে মর্মে এই মোকদ্দমা টি আদালতে আনায়ন করেন অভিভাবকরা।
আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category