মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫১ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English
জনবান্ধব ইউএনও মিজাবে রহমত তারাকান্দায় সর্বমহলে প্রশংসিত
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি / ৬৭ Time View
Update : মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২

আমাদের দেশে সাধারণ মানুষ অনেক সময় প্রশাসনের সেবা থেকে বঞ্চিত হন, কারণ তারা ডিঙাতে পারেন না কর্মকর্তাদের অফিসের দরজা। সরকারি সেবা পাওয়া আর সোনার হরিণ মনে হয় সমান। দিনের পর দিন ঘুরে কাজ করাতে না পেরে মানুষ আস্থা হারাচ্ছে সরকারি অফিস ও অফিসারদের উপর। কিন্তু এর ব্যতিক্রমও আছেন। তেমনই একজন ব্যতিক্রম সরকারি অফিসার মিজাবে রহমত, যিনি বর্তমানে ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন।

মিজাবে রহমত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে তারাকান্দায় যোগদান করার পর তার সততা ও কর্মদক্ষতায় পাল্টে গেছে উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম ও সার্বিক চিত্র। সরকারি-বেসরকারি প্রতিটি দপ্তরের কর্মকাণ্ডে ফিরে এসেছে গতিশীলতা ও স্বচ্ছতা। কমেছে জনভোগান্তি আর বৃদ্ধি পেয়েছে জনসেবার মান। তারাকান্দা উপজেলাকে একটি মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করছেন তিনি। জনবান্ধব এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কর্মকাণ্ডে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন উপজেলার সকল জনপ্রতিনিধি, গণমাধ্যমকর্মী ও সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গরা।

মিজাবে রহমত দায়িত্ব নেওয়ার পর তারাকান্দা উপজেলা প্রশাসনকে নিজের মতো করে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নেন। তারাকান্দাকে একটি আধুনিক উন্নত জনপদ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে কাজ করছেন। তার সততা ও কর্মদক্ষতায় উপজেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা ও গতিশীলতা ফিরে আসতে শুরু করেছে।

তিনি এলাকায় ঘুরে ঘুরে রাস্তাঘাট উন্নয়নের সার্বিক বিষয় তদারকি করেন। ব্যক্তিগতভাবে সামাজিক উন্নয়নে নিবেদিত প্রাণ মিজাবে রহমত রাষ্ট্র কর্তৃক নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন ও জনকল্যাণমূলক কাজ করে দক্ষ প্রশাসক হিসেবে উপজেলার সব শ্রেণি-পেশার মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। সেইসঙ্গে গণমাধ্যম, ফেসবুক, মুঠোফোনের মাধ্যমে পাওয়া বিভিন্ন অভিযোগ ও সমস্যা দ্রুত সমাধান ও তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিয়ে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের প্রশংসাও কুড়িয়েছেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করার প্রয়াসে তার উদ্যোগে তারাকান্দা শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে স্থাপিত হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল, উপজেলা পরিষদের অভ্যন্তরে রয়েছে শেখ রাসেল ফোয়ারা ও ভাষা সৈনিক শামসুল হক উদ্যান।

বিভিন্ন ইউনিয়নে সরকারের বরাদ্দকৃত উন্নয়ন কর্মকান্ডকে স্বচ্ছ ও দুর্ণীতি মুক্ত পরিবেশে জনকল্যাণে জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে দেওয়ার মাধ্যমে তিনি স্বচ্ছ ও দুর্নীতি মুক্ত জনপ্রশাসন কে জনকল্যাণে জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে দিতে রাত দিন শ্রম দিচ্ছেন। বিশেষ করে উপজেলায় ভিক্ষুকের পুনর্বাসনের জন্য ছাগল,অটো ভ্যানসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদী বিতরণ,জলাবদ্ধতা নিরসন,ভেজাল খাদ্যের বিরুদ্ধে অভিযান,বাল্য বিবাহ বন্ধে জনগণের মাঝে জনসচেতনতা বৃদ্ধি,শিক্ষার মান বৃদ্ধি, অসহায় ব্যক্তিবর্গের সমস্যা সমাধান কল্পে সরেজমিনে খোজ নেওয়া, যাতায়াতের সমস্যা সমাধানে রাস্তা সংস্কার, ব্রীজ কালভার্ট নির্মান, মুজিব বর্ষে সরকারের গৃহনির্মাণ প্রকল্পের তদারকি ও উপযুক্ত উপকার ভোগীদের মাঝে ঘর বরাদ্দে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনসহ বিভিন্ন সেবামূলক কার্যক্রমে তিনি উপজেলাবাসীর কাছে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে উপজেলার কয়েকজন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বার বলেন, আমাদের তারাকান্দা উপজেলার ইতিহাসে এমন জনবান্ধব ইউএনও আমরা দেখিনি। উনি অল্প কয়েকদিনে যেভাবে সকলের ভালোবাসা ও দোয়া পেয়েছেন, এই দেশ একদিন উনার মতো ভালো লোকের কারণেই উন্নতির শিখরে আরোহন করবে। উনি আছেন আমাদের উপজেলার সকল মানুষের হৃদয়ে।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
জনপ্রিয় সংবাদ
সর্বশেষ সংবাদ